কমিকসে হাস্যকর ও অদ্ভূত সব ক্রসওভার

বেস্ট বায়োস্কোপ, ঢাকা:  প্রিয় সুপারহিরোদের একই বই এ, একই কাহিনীতে একে অপরের সাথে দেখতে ভালবাসেন ছোটবড় সব বয়েসি কমিকসপ্রেমীরা, যাকে বলা হয় ক্রসওভার। কিন্তু যেকোনো দুটি চরিত্রকে একসাথে জুড়ে দিলেই যে একটা চমৎকার ক্রসওভার তৈরি হয়  তেমন কিন্তু নয়, বরং কিছু ক্ষেত্রে ঠিক উল্টোটাই ঘটে!

ব্যাটম্যান ও শার্লক হোমস

রানী এলিজাবেথ কে হত্যারচক্রান্ত নিয়ে মাঠে নেমেছে প্রফেসর মরিয়ারটি এর এক বংশধর। সেই চক্রান্ত কে নস্যাৎ করতে ইংল্যান্ড এ এসে হাজির হয় ব্যাটম্যান আর রবিন। আর ইংল্যান্ড এর ভবিষ্যৎ রক্ষায় তাদের দুজনকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন স্বয়ং শারলক হোমস! কিন্তু আরথার কোনান ডয়েল এর উপন্যাস অনুযায়ী তো ১৮৮৭ তে হোমসের বয়স ছিল ৩৩, তাহলে এতদিন পরেও বেঁচে থাকা কি করে সম্ভব? লেখকদের দাবি, খাওয়া দাওয়ায় সতর্কতা, তিব্বত এর ‘জীবনসঞ্চায়িনী’ আবহাওয়ায় বসবাস এবং নিজের মৌমাছি খামারে তৈরি “বিশেষভাবে পরিশোধিত” মধু খেয়ে ১৩০ বছর বয়েসেওসবার অগোচরে বহাল তবিয়তে বেঁচে ছিলেন শারলক।

তবে হারানো যৌবন ধরে রাখতে ইংল্যান্ডে না থেকে তিব্বতেই পড়ে থাকতেন উনি।

এমিনেম ও পানিশার

র‍্যাপ গানের মাধ্যমে শিশু কিশোরদের হিংস্র আরবেপরোয়া করে তুলছেন জনপ্রিয় র‍্যাপার এমিনেম। তাই উদ্বিগ্ন অভিভাবকদের নিয়ে তৈরি সংগঠন ‘প্যারেন্টস মিউজিক কাউন্সিল’ এমিনেমকে থামাতে ভাড়া করে তারই ছোট্টবেলার বন্ধু ‘বারাকুডা’ নামের এক হিটম্যানকে! বারাকুডার হাত থেকে এমিনেম কে বাঁচাতে এগিয়ে আসে বারাকুডা এর পুরনো শত্রু পানিশার, কিন্তু বারাকুডাএর ছলা-কলায় ভুলে পানিশারকেই শত্রু ভেবে বসেন এমিনেম। কাহিনীর এক পর্যায়ে এমিনেম ফ্রিস্টাইল র‍্যাপ করতে করতে পিস্তল এর বাট দিয়ে পিটিয়ে অজ্ঞানও করে দেন বেচারা পানিশারকে। বিশ্বাস হচ্ছে না? না হবারই কথা। আরও অবিশ্বাস্য হচ্ছে, কাঁচা হাতের লেখা হাস্যকর এই কমিকবইটির গর্বিত উদ্যোক্তা ছিলেন স্লিম শেডি নিজেই ।

টিভি সিরিয়ালে মার্ভেল সুপারহিরো

ভেবে দেখুন, জি বাংলার নিয়মিত ধারাবাহিকগুলোর নীতিবান, নিপীড়িত কোন নতুন বউ দৈববতে হঠাৎ করে অসাধারণ কোন সুপার পাওয়ার পেয়ে বসল, আর সেই পাওয়ার খাটিয়ে আচ্ছা মতন শায়েস্তা করা আরম্ভ করল দুষ্টু শাশুড়ি আর ঘরের বড় বউদের। ওপার বাংলার নাটকে এমন কিছু এখনো না ঘটলেও, যুক্তরাষ্ট্রের ‘গাইডিং লাইট’ নামের এক ধারাবাহিক নাটকে এমনি অঘটন ঘটিয়েছিল মারভেল, যেখানে নাটকের মুল নারী চরিত্রদের একজন দুর্ঘটনাবশত সুপার পাওয়ারের অধিকারী হয়ে পড়ে। পর্বটি সম্প্রচারের কিছুদিনের মধ্যে চরিত্রটিকে নিয়ে মারভেল একটি কমিকবুক প্রকাশ করে, যেখানে হাজির করা হয় মারভেল জগতের বাঘা বাঘা সব হিরোদের। বলা বাহুল্য, নাটকটির রেটিং বাড়াতেই অহেতুক এই ক্রসওভারটি ঘটানো হয়েছিল। মারভেল এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে নাটকটির প্রতি মানুষকে আগ্রহী করে তুলতে চেয়েছিলেন নির্মাতারা।

তবে তাতে করে লাভ বিশেষ কিছু হয় নি, বরং পর্বটি সম্প্রচারের পর নাটকটির রেটিং আরও নেমে যায় এবং কিছুদিনের মধ্যে অনুষ্ঠানটির সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়া হয়।

সুপারম্যান ও সবাই

তবে কমিক্স ইতিহাসের সবচাইতে অনর্থকআর হাস্যকর ক্রসওভারদেরকথা যদি বলতে হয়, তবে সুপারম্যান এর নাম থাকবে সবার উপরে। হি-ম্যান থেকে শুরু করে মুহাম্মাদ আলী -সুপারম্যান এর সাথে ক্রসওভার ঘটানো হয়নি এমন চরিত্র বিরল। সমস্যা হচ্ছে, সুপারম্যান এর ক্ষমতা এতটাই বেশি যে তার সাথে আসলে কাউকেই লড়াই করতে দেয়া চলে না, আর সবসময় ক্রিপটোনাইট ঝুলিয়ে সুপারম্যান কে মুশকিলে ফেলাটাও এক ঘেয়ে। তাই লেখকরা এই ক্রসওভারগুলোতে এমন সব    নিত্য নতুন আইডিয়া বের করে সুপারম্যানকে প্রতিপক্ষের ফাঁদে ফেলেছেন, যাতে করে লড়াই শুরু হবার আগেই সুপারম্যান এর এক ঘুষিতে সব শেষ না হয়ে যায়।

দুঃখের বিষয় একটাই, আইডিয়া গুলোর অধিকাংশই একেবারে ছেলেমানুষী আর কাঁচা। অবশ্য সেটা বোঝার জন্য বই গুলোর কভার আর টাইটেল গুলোতে চোখ বুলিয়ে দেখলেই যথেষ্ট, কষ্ট করে পুরো গল্প পড়বার দরকার নেই।

বেস্ট বায়োস্কোপ কমিকস
২৫ জুলাই ২০১৬

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: