আফগানদের উড়িয়ে টাইগারদের শততম জয়

বেস্ট বায়োস্কোপ, ঢাকা: ইংল্যান্ড সিরিজ শুরুর আগে ছন্দে ফিরলো বাংলাদেশ। ওয়ানডেতে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে শততম জয়টি স্মরণীয় করে রাখলো টাইগাররা। আফগানিস্তানকে ১৪১ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটি ২-১ এ জিতে নিয়েছে মাশরাফিবাহিনী।

দীর্ঘ আট বছর পর দলে ফিরেই বল হাতে নিজের সামর্থ্যের জানান দেন মোশাররফ হোসেন রুবেল। ছয় ওভারে ১৫ রান খরচায় তিনটি উইকেট তুলে নেন ৩৪ বছর বয়সী এ বাঁহাতি স্পিনার।

১৭তম ওভারে সাকিব আল হাসানের থ্রোতে রান আউটের ফাঁদে পড়েন অধিনায়ক আসগর স্তানিকজাই (১)। তার আগে নিজের তৃতীয় ওভারে নওরোজ মঙ্গল (৩৩) ও হাসমতউল্লাহ শাহীদিকে (০) ফিরিয়েছেন আট বছর পর দলে ফেরা স্পিনার মোশাররফ হোসেন রুবেল।

পাঁচ রান তুলতেই প্রথম উইকেট হারায় আফগানরা। ইনিংসের তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই মোহাম্মদ শাহজাদের (০) স্ট্যাম্প ভাঙেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে নওরোজের সঙ্গে ৪৭ রান যোগ করেন ওয়ানডাউনে নামা রহমত শাহ।

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শনিবারের (১ অক্টোবর) ম্যাচটিতে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। তামিম ইকবালের সেঞ্চুরি ও সাব্বির রহমানের ফিফটিতে নির্ধারিত ওভারে আট উইকেটে ২৭৯ রানের লড়াকু পুজি পায় বাংলাদেশ। সিরিজ নিশ্চিতের সঙ্গে ওয়ানডেতে শততম জয় ভিন্ন কিছুই ভাবছে না টাইগাররা।

বলে রাখা ভালো, প্রথম ম্যাচে ২৬৫ রান করে প্রায় হারের শঙ্কায় পড়েছিল বাংলাদেশ। স্লগ ওভারগুলোতে ঘুরে দাঁড়িয়ে সাত রানের কষ্টার্জিত জয়ই পায় মাশরাফিবাহিনী।

প্রায় দেড় বছরের আক্ষেপ ঘুঁচিয়ে ওয়ানডেতে ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি তুলে নেন তামিম। সমানসংখ্যক বলে তার ১১৮ রানের ইনিংসে ছিল ১১টি চার ও ২টি ছক্কার মার। কিন্তু ৩৯তম ওভারে দলীয় ২১২ রানে তামিমের বিদায়ের পর সাকিব-মুশফিক-মোসাদ্দেক দ্রুত বিদায় নিলে ষষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটে। বড় সংগ্রহের লক্ষ্য থেকে ব্যাকফুটে চলে যায় দল।

ইনিংসের তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই ব্যক্তিগত ১ রানে জীবন পেয়েছিলেন তামিম। মোহাম্মদ নবীর বলে মিডঅনে সহজ ক্যাচ হাতছাড়া করেন অাফগান অধিনায়ক আসগর স্তানিকজাই। শেষ পর্যন্ত এর চড়া মাশুলই গুণতে হয় সফরকারীদের।

ষষ্ঠ ওভারে মিরওয়েস আশরাফের বলে মোহাম্মদ শাহজাদের গ্লাভসবন্দি হয়ে পুরো ওয়ানডে সিরিজেই ব্যর্থতার পরিচয় দেন সৌম্য সরকার (১১)। আগের দুই ম্যাচে তার রান যথাক্রমে ০, ২০।

সৌম্যর ব্যর্থতার বিপরীতে চেনা রূপে ফেরেন সাব্বির। প্রথম দুই ওয়ানডের ব্যর্থতা (২, ৪) ভুলে ৬৫ রানের কার্যকরী ইনিংস উপহার দেন তিনি। ছাড়িয়ে যান একদিনের ক্রিকেটে নিজের আগের সর্বোচ্চ স্কোর (৫৭)। ৩১তম ওভারে নওরোজ মঙ্গলের বলে রহমত শাহর ক্যাচে পরিণত হন।

এছাড়া আর কেউই বলার মতো স্কোর করতে পারেননি। সাকিব আল হাসান ১৭, মুশফিকুর রহিম ১২ রান করে আউট হন। আগের ম্যাচে ৪৫ রানের অপরাজিত ইনিংসে অভিষেকেই আলো ছড়ানো মোসাদ্দেক হোসেন ব্যক্তিগত ৪ রানে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন।

এই জয়ে ঘরের মাঠে টানা ৬টি সিরিজ জিতল বাংলাদেশ।

বেস্ট বায়োস্কোপ স্পোর্টস
১ অক্টোবর ২০১৬

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: