বলিউডে কোটি টাকার ফ্লপ ছবি

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী প্রতি বছর প্রায় হাজারখানেক ছবি মুক্তি পায় বলিউডে। কোনোটা কোটি টাকার বাজেট, তো কোনোটা খুবই কম বাজেটের। কোনোটা ব্যবসাসফল তো কোনটি সমালোচকদের প্রশংসা কুড়ায়। তবে বেশ কিছু ছবি আশার বেলুন ফুলিয়েও হতাশ করে। কোটি টাকা খরচ করেও লাভের মুখ দেখেন না প্রযোজকরা।

বিগ বাজেটের ছবিগুলি নিয়ে প্রিমিয়ারেই একটা উন্মাদনা তৈরির চেষ্টা করেন পরিচালক, নির্মাতারা। প্রিমিয়ারেই বাজিমাত করে অনেক বিগ বাজেটের ছবি। এমন এনেক বিগ বাজেটের ছবি আছে যেগুলো প্রিমিয়ারে বাজিমাত করলেও, মুক্তি পাওয়ার পর সে ভাবে দর্শকদের মন কাড়তে পারেনি। সেই ফ্লপ বিগ বাজেটের ছবিগুলি এক নজরে দেখে নেয়া যাক।

বম্বে ভেলভেট-
রণবীর কাপুর, অানুষ্কা শর্মা অভিনীত এই ছবিটি পরিচালনা করেন অনুরাগ কাশ্যপ। বম্বে ভেলভেটকে শতাব্দীর সেরা ফ্লপ হিসাবেও আখ্যা দেওয়া হয়। ১২০ কোটি টাকা বাজেটের এই ছবির বক্স অফিস কালেকশন মাত্র ৩১ কোটি টাকা।

রয়-
এই ছবিতেও রণবীর কাপুর অভিনয় করেছিলেন। সঙ্গে ছিলেন জ্যাকলিন। ৪৪ কোটি টাকা বাজেটের এই ছবিটি মাত্র ৪০ কোটি টাকার ব্যবসা করতে পেরেছিল।

আগ-
শোলে’র রিমেক আগ এর আর এক নাম রাম গোপাল বর্মা কি আগ। অমিতাভ বচ্চন, অজয়  দেবগণ এবং আরও অনেকে ছিলেন এই ছবিতে। আগ এর বক্স অফিস কালেকশনও ছিল খুবই খারাপ

দ্রোনা-
দ্রোনা তে অভিনয় করেছিলেন জুনিয়র বচ্চন। অভিষেক ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জুটির ৬০ কোটি টাকা বাজেটের এই ছবি বাজার থেকে অর্ধেক টাকাও তুলতে পারে নি।

বীর-
সালমান খানের ফ্লপ ছবিগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বীর। বীর-এ সল্লু মিঞা এক যোদ্ধার অভিনয় করলেও বক্স অফিসের যুদ্ধে এই ছবিটি হেরে গিয়েছিল। অনেক আশা থাকলেও দর্শকরা হয়েছিলেন হতাশ।

যুবরাজ-
বলিউডের বিখ্যাত নির্মাতা সুভাষ ঘাই পরিচালিত এই ছবিতে অ‌ভিনয় করেছেন অনিল কাপুর, সালমান খান, ক্যাটরিনা কাইফ, জায়েদ খানের মতো তারাকরা।  ৫০ কোটি টাকা বাজেটের এই ছবির বক্স অফিস কালেকশন ছিল মাত্র ১৬ কোটি টাকা। তারকায় ঠাসা এই ছবিও হলমুখী করতে পারেনি দর্শকদের । তবে ছবির গানগুলো ছবির তুরনায় কিছুটা সফল ছিলো।

কাইটস-
অনুরাগ বসু পরিচালিত এই ছবিটির প্রযোজক ছিলেন রাকেশ রোশন। হৃতিক রোশন এবং বারবারা মোরি কাইটস এ অভিনয় করেন। ৬০ কোটি টাকা বাজেটের এই ছবিটি বাজার থেকে মাত্র ৪৯ কোটি টাকা তুলতে পেরেছিল।

হিম্মতওয়ালা-
অজয় দেবগন এর জীবনের ফ্লপ ছবিগুলোর মধ্যে হিম্মতওয়ালা অন্যতম। এই ছবিটির পরিচালক সাজিদ খান। ছবিটি  মাত্র ৪৭ কোটি টাকার ব্যবসা  করেছিল যেখানে বাজেট ছিল ৭০ কোটি টাকা।

গুজারিশ-
গুজারিশ সমালোচকদের মধ্যে আলোচনা সৃষ্টি করেছিল। কিন্তু দর্শকদের মধ্যে কোনও আলোড়ন ফেলতে পারেনি।  সঞ্জয় লীলা বনশালী এই ছবিটি নির্মাণ করেন এবং অভিনয় করেন হৃতিক রোশন ও ঐশ্বরিয়া রায়। বলিউডের সমালোচক ও তারকারা হৃত্বিকের অভিনয়ের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

ব্লু-
এই ছবিটিতে দেখা গিয়েছিল তারকাদের সমাবেশ। সঞ্জয় দত্ত, অক্ষয় কুমার, লারা দত্ত, জায়েদ খানের মতো তারকারা অভিনয় করেছিলন ছবিটিতে। অ্যাকশনধর্মী ছবিটি র্দকদের মাঝে থেকে ভালো রিঅ্যাকশন পায়নি। ফলে ফ্লপের খাতায় নাম লেখায় বিগ বাজেটের এই ছবিটি।

লাভ স্টোরি ২০৫০-
প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও হারমান বায়েজা অভিনীত সায়েন্স ফিকসন ‘লাভ স্টোরি ২০৫০’।বলিউডের সিনেমায় অন্যরকম এক ধারা তৈরি করতে এসে একদমই ব্যর্থ সিনেমাটি। অন্য ধরনের প্রচেষ্টা হলেও ছুঁতে পারেনি দর্শকের মন। বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পরে বিগ বাজেটের এই ছবি।

সাওয়ারিয়া-
রণবীর কাপুর এবং সোনম কাপুরের প্রথম ছবি ‘সাওয়ারিয়া’। সালমান খানকেও দেখা গেছে এই ছবিতে। সাওয়ারিয়ার সঙ্গে একই দিনে মুক্তি পেয়েছিল শাহরুখ খানের ওম শান্তি ওম। আর মূলত সেই জন্যই দর্শকরা হলমুখী হয়নি দুই জন নিউকামারকে প্রথমবার দেখতে। অনেক আশা থাকলেও সঞ্জয় লীলা বানসালির ছবিটি ফ্লপ করে। তবে রণবীর ও সোনমের অভিনয়ের প্রশংসা করে সবাই। এছাড়া ছবির গানগুলোও বেশ হিট হয়েছিলো।

চাঁদনি চক টু চায়না-

এই ছবিতে অভিনয় করছেন অক্ষয় কুমার ও দীপিকা পাড়ুকোন। অক্ষয় কুমারের মার্শাল আর্টস অনেকের মন মাতালেও সেভাবে ব্যবসা করতে পারেনি চাঁদনি চক টু চায়না। এই ছবির বক্স অফিস কালেকশন ছিল মাত্র ৫০ কোটি টাকার মত, যেখানে ছবিটি তৈরি করতে খরচ হয়েছিল ৮০ কোটি টাকা।

বেস্ট বায়োস্কোপ বিনোদন
৩ নভেম্বর ২০১৬

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: