ভারতের বিশ্বজয়ী সুন্দরীরা

বেস্ট বায়োস্কোপ, ঢাকা:  সম্প্রতি মিস ওয়ার্ল্ড নির্বাচিত হয়েছেন ভারতের মানুষী চিল্লার। তার হাত ধরে ১৭ বছরের খরা কাটিয়েছে ভারত। তার আগেও বেশ কয়েকজন ভারতীয় মিস ওয়ার্ল্ড নির্বাচিত হয়েছেন। জুটেছে মিস ইউনিভার্স ও এশিয়া প্যাসিফিকের খেতাবও। তাদের অনেকেই এখন বলিউড-হলিউডে সগৌরবে কাজ করে যাচ্ছেন।

দেখুন ভারতের বিশ্বজয়ী সুন্দরীদের

রীতা ফারিয়া

সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার ভারতীয়দের বিষয়ে কথা উঠলে প্রথমেই যার কথা মনে আসে তিনি হলেন রীতা ফারিয়া। দেশে যখন মডেলিং নিয়ে সামান্যই উৎসাহ ছিল সে সময় ১৯৬৬-এ ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ খেতাব জিতেছিলেন তিনি। শুধু ভারতীয় নয়, প্রথম এশীয় হিসেবেও সেই খেতাব এনেছিলেন রীতা। তবে খেতাব জয়ের পর মডেলিং তো বটেই একাধিক ফিল্মের অফার ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি। গোয়ার মেয়ে এর পর মন দেন ডাক্তারিতে।

জিনাত আমান

‘মিস ইন্ডিয়া’ প্রতিযোগিতায় তৃতীয় হওয়ার পর ১৯৭০-তে ‘মিস এশিয়া প্যাসিফিক’-এর খেতাব জেতেন জিনাত আমান। সেই প্রথম কোনও ভারতীয়ের হাত ধরে এল ওই জয়। মডেলিং ছেড়ে এর পর বলিউডের ডাকে সাড়া দেন জিনাত। যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনার পর অল্প বয়সেই মডেলিং শুরু করেছিলেন। বলিউডের টানে সাতের দশকেই মডেলিং ছেড়ে দেন তিনি।

সুস্মিতা সেন

সুস্মিতা সেনের আগে ‘মিস ইউনিভার্স’-এর খেতাব কেউ জেতেননি। ফলে ১৯৯৪-এ ওই খেতাব জয়ের পর ইতিহাস গড়েন তিনি। দেশে ফিরে মডেলিং নয়, পেশা হিসেবে বেছে নেন অভিনয়কেই। অভিনয় ছাড়াও মডেলিং কনসালটেন্ট কাজ করেছেন এই বাঙালি।

ঐশ্বরিয়া রায়

সুস্মিতা সেনের সঙ্গে একই বছরে, ১৯৯৪-এ ‘মিস ওয়ার্ল্ডে’র মুকুট জয় করেন ঐশ্বরিয়া রায়। বেঙ্গালুরুর মেয়েটি এর র অভিনয় জগতে পা রাখেন। ১৯৯৭-এ মণিরত্নমের তামিল ফিল্ম ‘ইরুভর’-এ অভিষেকের পর বলিউডে পথচলা শুরু। সে বছরই ‘অউর প্যায়ার হো গ্যায়া’ দিয়ে বলি-পর্দায় অভিষেক তার।

ডায়ানা হেডেন

সুস্মিতা-ঐশ্বরিয়ার পথ ধরেই ভারতকে ফের একবার বিশ্বমঞ্চে তুলে ধরেন ডায়ানা হেডেন। ১৯৯৭-এ ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ জয়। এরপর বলিউডের দিকেই পা বাড়ান তিনি। লন্ডনের রয়্যাল অ্যাকাডেমি অব ড্রামাটিক আর্টস-এর পড়ুয়া ডায়ানা অভিনয়ের ফাঁকে ফাঁকেই বহু টেলিভিশন শো করেছেন। ২০১৩-তে লাস ভেগাসের কলিন ডিককে বিয়ে করেন ডায়ানা।

যুক্তা মুখী

বেঙ্গালুরুতে জন্ম হলেও সাত বছর বয়স থেকেই দুবাইতে বড় হয়েছেন যুক্তা মুখী। এর পর মুম্বাই চলে আসে তার পরিবার। ১৯৯৯-এ ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ জেতার পর মডেলিং ছেড়ে অভিনয়ের দিকে ঝোঁকেন তিনি। ২০০১-এ তামিল ফিল্ম করার পর হিন্দিতে বেশ কয়েকটি ফিল্ম করেন তিনি। তবে ফিল্ম ক্যারিয়ারে তেমন সাফল্য মেলেনি তার। এর পর রাজনীতিতে যোগ দেন যুক্তা।

লারা দত্ত

সুস্মিতার সেনের পর দ্বিতীয় ভারতীয় হিসেবে ‘মিস ইউনিভার্স’ খেতাব জেতেন লারা দত্ত। সালটা ২০০০। এর বছর তিনেক পর হিন্দি ফিল্মে দেখা যায় তাকে। অ্যাক্টিংয়ের ছাড়াও প্রযোজনাতেও মন দিয়েছেন তিনি। টেনিস তারকা স্বামী মহেশ ভূপতির সঙ্গে সংসার করার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি টেলিভিশন শোতেও দেখা গিয়েছে লারাকে।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

‘মিস ইন্ডিয়া’র খেতাব অল্পের জন্য হাতছাড়া হলেও ২০০০ সালে মিস ওয়ার্ল্ড জেতেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। এরপর বলিউডে প্রবেশ। সেখানেও সাফল্য। এক সময় তো বলিউডে হাইয়েস্ট পেড অ্যাক্টরদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন। বলিউডের ছাড়াও হলিউডেও নিজের ছাপ রেখেছেন প্রিয়াঙ্কা।

দিয়া মির্জা

বলিউডে পা রাখার অনেক আগে থেকেই মডেলিং করছেন দিয়া মির্জা। ২০০০ সালে ম্যানিলায় ‘মিস এশিয়া প্যাসিফিক’-এর খেতাব জেতেন তিনি। সেই সঙ্গে সঙ্গে একটা রেকর্ডও গড়েন দিয়া। সেই প্রথম কোনও ভারতীয়ের মাথায় ওই মুকুট উঠেছিল। জার্মান বাবা আর বাঙালি মায়ের সন্তান দিয়া একাধিক ভাষাতেও সমান দক্ষ। অভিনয়ের পাশাপাশি সমাজসেবামূলক কাজেও আগ্রহী তিনি।

নিকোল ফারিয়া

প্রথম ভারতীয় হিসেবে ‘মিস আর্থ’ খেতাব জেতেন নিকোল ফারিয়া। সালটা ২০১০। বেঙ্গালুরুর সার্কিটে ফ্যাশন মডেল হিসেবে দীর্ঘ দিন ধরেই পরিচিত নাম নিকোল। মাত্র ১৫ বছর বয়স থেকেই দিল্লি, মুম্বাই, কলম্বোয় কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।

বেস্ট বায়োস্কোপ বিনোদন
২১ নভেম্বর ২০১৭

Comments

comments

Leave a Reply

6 Shares
Share via
%d bloggers like this: