২০১৮ বিশ্বকাপ: যাদের সঙ্গে খেলবে আর্জেন্টিনা

বেস্ট বায়োস্কোপ, ঢাকা: বিশ্বকাপ ফুটবল মানেই যেন দু ভাগ হয়ে যায় পুরো বিশ্ব। ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ এ নিজ নিজ দলের পক্ষে সমর্থন দিতে থাকেন সবাই। বাড়ি বাড়ি উড়তে থাকে পছন্দের দলের পতাকা। আর সবচেয়ে বেশি ভাগ হয় নিশ্চিতভাবেই আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল নিয়ে।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো এর প্রভাব পড়ে বাংলাদেশে। শত শত মাইল দূরে থেকেও পছন্দের দলের পক্ষে চিৎকার করতে থাকে বাংলাদেশিরা। শহরের ভবনগুলোর উপরে উড়তে থাকে হাজার হাজার পতাকা। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা দ্বন্দ্বে এসময় কাছের বন্ধুদের সঙ্গেও বিবাদ জড়িয়ে পড়ে লোকজন। গত বিশ্বকাপেও এনিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে বিশ্বের বড় বড় সংবাদমাধ্যমগুলো।

আর এবার আরেকটি বিশ্বকাপ সামনে। সময়টা যেন যাচ্ছেই না ফুটবলপ্রেমীদের জন্য। এইতো ২০১৪ বিশ্বকাপ ফুটবল যেতে না যেতেই দরজায় কড়া নাড়ছে ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসর। রাশিয়াতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ২০১৮ বিশ্বকাপ।

অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে আর্জেন্টিনা ভক্তরা। যদিও অনেক টানাপোড়েনের মধ্যে দিয়ে গ্রুপ পর্বে যায়গা করে নিয়েছে সাউথ আমেরিকার এই বিশ্বনন্দিত দলটি।

দুইবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ও তিনবার রানার্সআপ হওয়া এই দলটি এইবারের বিশ্বকাপে তাদের নৈপুণ্য দেখাবে এমনটাই আশা নিয়ে আছে ভক্তরা। আর এজন্য তাদের খেলতে হবে আইসল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া ও আফ্রিকার  নাইজেরিয়ার সঙ্গে।

৮ টি গ্রুপ এর ভিতর ডি গ্রুপে শীর্ষে রয়েছে মেসি ও ডি মারিয়া বাহিনী। ২০১৮ সালের জুন মাসের ১৬ তারিখে শুরু হবে তাদের বিশ্বকাপ মিশন। আইসল্যান্ড এর বিপক্ষে রাশিয়ার মস্কোতে মাঠে নামবে দলটি।

তবে আর্জেন্টিনার মত শক্তিশালী দলের বিপক্ষে ম্যাচ খেলতে গিয়ে একটুও ভীত নয় আইসল্যান্ড। দলটির কোচ হেইমির হালগ্রিমসন বলেছেন, ‘প্রতিপক্ষ হিসেবে আর্জেন্টিনা রোমান্টিক ও মজার। তারা বিশ্বকাপ রোমান্সের সঙ্গে জড়িয়ে আছে।’

নিজেরা ছোট দল হয়েও কঠিন লড়াইয়ের আশা দেখছে আইসল্যান্ড, এটাও জানান কোচ। বলেন, ‘আমরা বছরখানেক ধরেই প্রমাণ করে আসছি যে আমরা ফুটবল খেলতে জানি। সে কারণেই বলল বিশ্বকাপে আমাদের প্রতিপক্ষ আর্জেন্টিনা হলেও আমরা ভাল খেলব বলে আশা রাখি।’

এরপর ২১ জুন খেলবে ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে। ক্লাব বার্সেলোনার বন্ধু লিওনেল মেসি, হাভিয়ের মাসচেরানোর বিপক্ষে খেলতে হবে ইভান রাকিতিচকে। মেসি-মাসচেরানোর আর্জেন্টিনার বিপক্ষে লড়তে মুখিয়ে আছেন তিনি। এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘এটা একটা কঠিন গ্রুপ; দারুণ লড়াই হবে। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের এগিয়ে যাওয়ার যোগ্যতা আছে। বন্ধু মেসি এবং মাসচেরানোর বিপক্ষে খেলতে পারব বলে আমি খুশি।’

২৬ জুন গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মেসিদের মুখোমুখি হবে নাইজেরিয়া। ১৯৯৪, ২০০২, ২০১০ ও ২০১৪ বিশ্বকাপের পর ২০১৮ সালের বিশ্বকাপেও দুই দেশ একই গ্রুপে পড়ল। মুখোমুখি চারটি ম্যাচেই জিতেছে আর্জেন্টিনা। চারটি ম্যাচে আর্জেন্টিনা গোল দিয়েছে সাতটি। অন্যদিকে আর্জেন্টিনার জালে নাইজেরিয়া বল ফেলেছে তিনবার।

১৯৯৪ সালে প্রথম বিশ্বকাপের মূল পর্বে আসে আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়া। দিয়েগো ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হতে হয় নবাগত দলটিকে। তবে মাত্র আট মিনিটেই স্যামসন সিয়াসিয়ার গোলে এগিয়ে চমক জাগিয়েছিলো নাইজেরিয়া। পরে ক্লদিও ক্যানিজিয়ার দুই গোলে নাইজেরিয়াকে হারায় ম্যারাডোনা-সিমিয়োনির আর্জেন্টিনা।

এরপর ২০০২ বিশ্বকাপেই আবার একই গ্রুপে পড়ে আর্জেন্টিনা ও নাইজেরিয়া। এশিয়ায় অনুষ্ঠিত ওই বিশ্বকাপে গোল মেশিন গাব্রিয়েল বাতিস্তুতার গোলে নাইজেরিয়াকে হারায় আর্জেন্টিনা।

২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে ম্যারাডোনা-ভেরন-মাসকারানো-মেসির আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হয় নাইজেরিয়া। ওই বিশ্বকাপে ম্যারাডোনা ছিলেন আর্জেন্টিনার কোচ। এক গোলে নাইজেরিয়াকে হারায় আর্জেন্টিনা।

সর্বশেষ ২০১৪ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা ৩-২ গোলে জয়ী হয়। ম্যাচের তিন মিনিটেই গোল করেন লিওনেল মেসি। এক মিনিট পরেই গোল শোধ করে দেন বিশ্বকাপে নজর কাড়া আহমেদ মুসা। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে আবারও মেসির গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। আবার সমতা আনেন মুসা। শেষে মার্কাস রোজো জয়সূচক গোল করেন।

এবার বিশ্বকাপে ম্যাচ কেমন হয় তাই দেখার পালা।

বেস্ট বায়োস্কোপ স্পোর্টস
৩ ডিসেম্বর ২০১৭

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: